সময়, দূরত্ব, শেকড়বাকড় জরাজীর্ণ অস্তিত্বের জড়তায়,
এতসব হিসেব নিকেশ পাড়ি দেবার যত অক্ষমতায়,
তুমি-আমি অতঃপর,
দুইদিকে দুইপথ, অথচ থেমে থাকি মৃত চৌরাস্তার উপর।
বিদায় তিথিডোর,
যে চোখ ভিজেছে পশলায়, যে বুক দিয়েছে আদর,
সেখানে জমেছে অটল বাটালি হিল,
চেনা আঙ্গুল হয়েছে দাবানল, বুক বিষে ধরেছে নীল।
বিহঙ্গের চলাচলে,
যে ডানা যেতো মেলে,
যে দুয়ার উন্মুক্ত তখন নিশিগন্ধা প্রদীপ জ্বেলে,
যে মনে অভিলাষ “এই বুঝি তুমি এলে”!

সময়, দূরত্ব, শেকড়বাকড় জরাজীর্ণ অস্তিত্বের জড়তায়,
দুয়ারে লেগে যায় কপাট, ডানা ভাঙা বিহঙ্গ মরে যায়,
তুমি-আমি অতঃপর,
ডেজার্ট চামচে লুকাই ক্ষুধা আর পিপাসার বালুচর।
আজ সব দৌড় একমুখী রাস্তায় দ্বিধাহীন,
খুলে দেখা এলবাম কদাচিৎ, সমীচীন!
আয়নায় এলোকেশী,
সাজঘর পেতে মুখশ্রী রাঙ্গায় নিজ ভূমে পরদেশী।
ক্ষয়ে যায় যত রোমন্থনের রত্নাচল,
অবিচল,
তার অধিক ক্ষয়ে যায় স্বপ্ন, তার অধিক জমে থাকে দায়,
জীবনের লাগাম ধরে নাগপাশ ছুটে চলে নিস্তেজ অচেনায়।

সময়, দূরত্ব, শেকড়বাকড় জরাজীর্ণ অস্তিত্বের জড়তায়,
ব্যস্ততম রাস্তা তুমি সম্পর্কের নাগরিকতায়,
তুমি-আমি অতঃপর,
বুকের আর্কাইভে জমে গেছে বিকলাঙ্গ কয়েকশ বছর।

 

Error: View 169b8e35d7 may not exist

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *