এ কেমন অগ্নিশপথ হে যোদ্ধা?
কুরুক্ষেত্র গড়বে বলে ভেঙ্গে দিলে নিবাস।
রমণীর আঁচলে সাদা শকুন বিছিয়ে
তার ওপর রচিলে রতিবিদ্যার ইতিহাস!

তারপর তোমায়,
বীরভূম বুকে গুঁজে নেবে পর রক্তমালায়,
ছায়াপিঠ খুঁজে পাবে কি সেইখানে?
যাত্রাপথ ডুবে গেলে অন্ধকূপ অনন্তশালায়!

নিষ্পাপ কস্তূরী,
ধনুকের নিশানায় করেছো বধ, কতবার!
অরণ্যের শীর্ষে শীর্ষে রোদের খেলা দেখে
এবার পোড়াতে এসেছো সবুজের সম্ভার।

যোদ্ধা তুমি,
বিকলঙ্গ হয়ে গেছো রাজরাজেশ্বরের পায়ে,
সময় যেদিন ফুরাবে হে দৃষ্টি-নক্তচর
যবনিকা ছেপে যাবে তোমার বীর অধ্যায়ে।

লিখে নাও অক্ষরে,
তোমায় ভুলে যাবে প্রাণী; ভুলে যাবে ঈশ্বর,
রাত পোহাবার স্তোত্র বাজে শোনো ঐ
রণভঙ্গে গির্জা ভেঙো, ভেঙো না নিজের ঘর।

 

Error: View 169b8e35d7 may not exist

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *