মুজিব! মুজিব! আকাশের নীল কালো মেঘে ঢেকে যায়।
মুজিবের খুনে আকাশটা লাল আজো প্রতি সন্ধ্যায়।
মুজিব ছিল তো! মুজিব কোথায়! ভাঙে পাড় পদ্মায়
ধানের সবুজে মুজিবের ঢেউ বাংলায় বহে যায়।
মুজিব এখনো ডাক দিয়ে যায় প্রতি জয় বাংলায়।
মুজিবের ধ্বনি বিজয়ের ধ্বনি ইতিহাস পৃষ্ঠায়।
মুজিব! মুজিব! ডাক ভেঙে ওঠে ঘন সুর দোতারায়।
মুজিব! মুজিব! জেগে ওঠে ভোর রাত্রির সীমানায়।
মুজিব আছে তো তাই আজো মাঝি টান দেয় বৈঠায়।
মুজিবের সাথে বাড়ি ফেরে আজো যাত্রীরা নৌকায়।
বাড়িতে বাড়িতে বড় হয় শিশু ধুলিমাখা আঙিনায়।
মাঠে মাঠে আজো কৃষক মাটিতে বীজধান বুনে যায়।
আজো শ্রমিকেরা কারখানা-কলে জাগে হাতুড়ির ঘায়।
মুজিব ছিলো তো! মুজিব এখনো ওই তাঁকে দেখা যায়।
দেখা যায় ওই দিনের রৌদ্রে রাতের পূর্ণিমায়।
আঁধারের বুকে এখনো আঘাত মুজিবই তো করে যায়।
মুজিব মরে না, মরেনি মুজিব কোনো বুলেটের ঘায়।
বুলেটে পতিত দেহই কেবল, অমর সে আত্মায়।
মুছে ফ্যালো মিছে অশ্রু তোমার, আজো এই বাংলায়
কুটিরে পাথারে নগরে ও গ্রামে পায়ে পায়ে হেঁটে যায়
অবিরাম হেঁটে চলেছে মুজিব রক্তচাদর গায়।
মুজিব! মুজিব! জনকের নাম এত সহজেই মোছা যায়!

Error: View 1740423w0o may not exist

আপনি যদি কবিতার আকাশে লিখতে চান তাহলে রেজিস্ট্রেশন করুন

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *