সংকীর্ণ দিগন্ত-চক্র; অবলুপ্ত নিকট গগনে;
পরিব্যাপ্ত পাংশুল সমতা;
অবিশ্রান্ত অবিরল বক্রধারা ঝরিছে সঘনে;
হাঁকে বজ্র বিস্মৃত মমতা;
প্লাবিত পথের পাশে আনত বঙ্কিম তরুবীথি
শিহরিছে প্রমত্ত ঝঞ্ঝায়; নিমজ্জিত প্রহরের বৃতি;
ভেদ নাই ঊষায় সন্ধ্যায়।
পথস্থ কুটিরদ্বারে ভয়ে পান্থ নিয়েছে আশ্রয়;
সিক্ত গাভী ছুটে চলে গোঠে;
কপোত কুলায় কাঁপে; দাদুরী নীরব হয়ে রয়;
পুষ্পবুকে অশ্রু ভ’রে ওঠে;
নিষিক্ত স্তব্ধতা ভেদি, প্রলয়ের হুংকার-রণনে,
পরিপ্লুত নদীর ককল্লোলে,
উন্মাদ শ্রাবণবন্যা ছুটে আসে ভৈরব নিঃস্বনে,
অবরুদ্ধ পরান-পল্বলে।

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *