আমি লুঙ্গি-বাউলের নাতি, শাড়ি-কিষানির ব্যাটা
আমার বাপের নাম কে না জানে, চাষা-মালকোঁচা
আমি গামছা-কুমোরের প্রতিবেশী, জ্ঞাতিগোষ্ঠী যত নিম্নজনা
ধুতি-গোয়ালারা জ্ঞাতি, আরও জ্ঞাতি খড়ম-তাঁতিরা
আমি লুঙ্গি-বাউলের নাতি, শাড়ি-কিষানির ব্যাটা।
বারোভাজা তেরোভাজা তোমাদের তেলেভাজা বুদ্ধি-বিবেচনা
আমাকে ছোঁবে না—আমি কাঁচামাছে, পোড়ামাংসে বাঁচি
আমার বউয়ের নাম কাঁচাসোনা; তোমাদের মতো বুকে কাঁচুলি পরে না
স্তনে মুখ ঘষে দিয়ে চলে আসি; ঝাঁপিখোলা-ঝাঁপিবন্ধ নেই।
মাটিভাষাভাষী শস্য, লতাগুল্ম, বৃক্ষ, বনরাজি
আমাকে শেখায় বীজমন্ত্র; আমি শরীরের মাটিভাষা জানি
মাটি মাতৃভাষা আমি সে-ভাষায় সোঁদাগন্ধ পুঁথি পাঠ করি
যা পড়ি শেকড়ে পড়ি; বাকলে লিখি না নাম তর্জমাবশত।
আমি লুঙ্গি-বাউলের নাতি; জন্ম মাটি-বংশধরে
মুখে খিস্তি-খেউড়ের দোচোয়ানি—ব্যাকরণে ঢেঁকুর তুলি না।

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *