বুকের ঊনপঞ্চাশ পৃষ্ঠা খোলো:
এটা একটা বিষাদের নদী; অভিমানের পাহাড়ে তার বাড়ি
চোখের এক শ বত্রিশ পৃষ্ঠায় যাও:
এটা একটা সাইকেলের গল্প; বালকের পঙ্খিরাজ ঘোড়া
থুতনির বিরানব্বই পৃষ্ঠা ওল্টাও:
এটা একটা বর্ষার কবিতা; প্রথম চুম্বনের জলরঙে আঁকা
চুলের এক শ ঊনসত্তর পৃষ্ঠায় থামো:
এটা একটা রাত্রির গীতিকা; এখানেই চন্দ্রাবতী ফোটে
চলো তবে পরিশিষ্টে যাই:
এটা একটা কীটদষ্ট অধ্যায়; তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাবে না

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *