তূলা ধুণি ধুণি আঁসুরে আঁসূ।
আঁসু ধুণি ধূণি নিরবব সেসু ॥
তউ সে হেরুঅ ণ পাবিঅই ।
সান্তি ভণই কিণ সো ভাবিঅই ॥
তূলা ধুণি ধূণি সূনে আহারিউ ।
পুন লইআঁ আপণা চটারিউ ॥
বহণ বাট দুইআর নদীসই ।
সান্তি ভণই বালাগ ন পইসই ॥
কাজ ন কারণ জো এহু জুঅতি
সএঁ সঁবেঅণ বোলথি সান্তি ॥

 

অনুবাদ

সুব্রত অগাস্টিন গোমেজ

তুলা ধুনে ধুনে পাওয়া গেল আঁশ,
আঁশ ধুনে ধুনে আর কিছু নেই,
বোঝা তো গেল না কী যে হেতু তার–
শান্তি বলেন–ভাবো যেভাবেই।
তুলা ধুনে ধুনে খেলাম শূন্যতাকে,
পরে তো হলাম শূন্য নিজেই।
কাদা-ভরা পথ, দু’বার যায় না দেখা,
চুলেরও ঢোকার সামর্থ্য নেই।
কার্য কারণ কিছু নয়, কিছু নয়,
স্বয়ং-সংবেদন এ, শান্তি কয়।

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *