উষ্ণা উষ্ণা পাবত তহিঁ বসই সবরী বালী ।
মোরাঙ্গ পীচ্ছ পরিহাণ সবরী গীবত গুঞ্জরী মালী ॥
উমত সবরো পাগল সবরো মা কর গুলী গুহারী ।
তোহেরী ণিঅ ঘরিণী ণামে সহজ সুন্দরী ॥
ণাণা তরুবর মৌলিল রে লাগেলী ডালী ।
একেলী সবরী এ বণ হিন্ডই কর্ণ কুন্ডল বজ্রধারী ॥
তিঅ ধাউ খাট পড়িলা সবরো মহাসুহে সেজি ছাইলী ।
সবরো ভুঅঙ্গ ণইরামণি দারী পেম্ম রাতি পোহাইলী ॥
হিঅ তাঁবোলা মহাসুহে কাপুর খাই।
সুণ নৈরামণি কন্ঠে লইআ মহাসুহে রাতি পোহাই ॥
গুরুবাক্ ধনুআ বিন্ধ ণিঅ মনে বাণেঁ ।
একে সর সন্ধানে বিন্ধহ পরম ণিবাণেঁ ॥
উমত সবরো গরুআ রোসেঁ ।
গিরিবর সিহর সন্ধি পইসন্তে সবরো লোড়িব কইসে ॥

 

অনুবাদ

সুব্রত অগাস্টিন গোমেজ

উঁচু পর্বতে বাস করে এক শবরী বালা,
ময়ূরপুচ্ছ পরনে, গলায় গুঞ্জামালা।
মত্ত শবর, পাগল শবর, কোরো না গোল,
সহজিয়া এই ঘরনিকে নিয়ে দুঃখ ভোল্।
নানা গাছপালা, ডালপালা ঠ্যাকে আকাশ-তলে;
একেলা শবরী কুণ্ডলধারী বনস্থলে।
ত্রিধাতুর খাটে শবর-ভুজগ শেজ বিছায়,
নৈরামনির কণ্ঠ জড়িয়ে রাত পোহায়,
কর্পূরযোগে হৃৎ-তাম্বূল চিবায় সুখে,
আত্মাহীনার আসঙ্গ তার মত্ত বুকে–
গুরুবাক্যের ধনুকের তিরে আপন মন
গেঁথে ফেলে লভো পরিনির্বাণ, পরম ধন।
কোথায় লুকালে, শবর আমার, অন্ধকারে?
খুঁজব তোমাকে কোন্ গিরিখাতে, কোন্ পাহাড়ে?

Loading

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *